ঢাকাসোমবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, রাত ৩:৩৭
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ব্যাংকের ১০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করে ১০ বছর আত্নগোপন

জান্নাতুল ফেরদৌস (চট্টগ্রাম প্রতিনিধি।)
সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২১ ৯:৫২ অপরাহ্ণ
পঠিত: 87 বার
Link Copied!

চট্টগ্রাম : ১০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করে ১০ বছর আত্মগোপনে বিলাসবহুল জীবন  কাটাচ্ছিলেন হায়দার আলী।

প্রায় ১০০ কোটি টাকার ঋণ নিয়ে উধাও হয়ে যান চট্টগ্রামের মেসার্স জুবলী ট্রেডার্স নামে একটি প্রতিষ্ঠানের মালিক হোসাইন হায়দার আলী। বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়ার পর সেই টাকা পরিশোধ না করেই ২০১২ সালে আত্মগোপন করেন তিনি।

ADVERTISEMENT

ব্যাংকের আত্মসাৎ করা অর্থে ঢাকার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় তৈরি করেন অভিজাত বাড়ি। সেখানেই পরিবার নিয়ে বিলাসবহুল জীবন কাটাচ্ছিলেন । কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা থেকে সুনির্দিষ্ট তথ্য ও প্রমাণের ভিত্তিতে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

ADVERTISEMENT

চট্টগ্রামের কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, হোসাইন হায়দার আলীকে গ্রেফতারের মাধ্যমে কোতোয়ালি থানায় ১০টি গ্রেফতারি পরোয়ানা কার্যকর হয়েছে। হোসাইন হায়দার আলী চট্টগ্রামের কোতোয়ালি থানার লাভ লেইন আবেদীন কলোনি এলাকার মৃত হায়দার আলী জিওয়ানীর পুএ।

ADVERTISEMENT

পুলিশ কর্মকর্তা মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন বলেন, হোসাইন হায়দার আলী যমুনা ব্যাংকসহ বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে প্রায় ১০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করে আত্মগোপন করেন। ঋণ পরিশোধ না করায় আদালতে বিভিন্ন ব্যাংকের পক্ষ থেকে তার বিরুদ্ধে কমপক্ষে ১০টি মামলা করা হয়। ১০টি মামলার বিচার শেষে আদালত বিভিন্ন মামলায় প্রায় ১০০ কোটি টাকার অর্থদণ্ড প্রদানসহ আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

তিনি আরও বলেন, আসামির বাড়ি এবং প্রতিষ্ঠান কোতোয়ালি থানা এলাকায় হওয়ায় গ্রেফতারি পরোয়ানা কোতোয়ালি থানায় আসে। কিন্তু দীর্ঘ দিন ধরে তিনি চট্টগ্রামে ছিলেন না। তিনি পরিবার নিয়ে আত্মগোপনে ছিলেন। একপর্যায়ে আমরা তার অবস্থান ঢাকার ভাটারা থানার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় শনাক্ত করা হয়। এরপর অভিযান চালিয়ে তাকে শুক্রবার রাতে গ্রেফতার করে চট্টগ্রামে নিয়ে আসা হয়েছে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামি জানায়, ঋণের টাকা আত্মসাতের পর চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় গিয়ে দীর্ঘ ১০ বছর ধরে বসবাস করছিলেন তিনি। সাজা ভোগ না করার জন্য বিভিন্ন এলাকায় আত্মগোপন করে ছিলেন তিনি। বিভিন্ন ব্যাংক থেকে তার ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের নামে নেওয়া ঋণের টাকা দিয়ে ঢাকায় একটি অভিজাত বাড়ি তৈরি করেন। ওই বাড়িতেই পরিবারসহ বসবাস করতেন হোসাইন হায়দার। আজ আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

 

ADVERTISEMENT

x