ঢাকারবিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, সকাল ৯:৩৪
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মুখের অবাঞ্ছিত লোম দূর করুন নিমিষেই

জান্নাতুল ফেরদৌস(নিজস্ব প্রতিবেদক)
আগস্ট ৩০, ২০২১ ১১:৩৩ অপরাহ্ণ
পঠিত: 82 বার
Link Copied!

 

 

 

 

মুখের অবাঞ্ছিত লোম অনেক নারীকেই বিব্রত করে।পুরুষের মতো মহিলাদের মুখে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি লোম থাকাকে হিরসুটিজম বলা হয়।

 

 

মহিলাদের শরীরে এন্ড্রোজেন নামক হরমোনের আধিক্যই এ রোগের কারণ। এই এন্ড্রোজেন মূলত পুরুষ দেহে বিদ্যমান একটি হরমোন। তবে মহিলাদের শরীরেও এ হরমোন অল্পমাত্রায় বিদ্যমান থাকে। কোনো কারণে যদি এ হরমোনের মাত্রা মহিলাদের শরীরে বেড়ে যায় তা হলে মহিলাদের শরীরে এ রকম অতিরিক্ত মাত্রায় লোম গজাতে থাকে। মূলত নারীদের শরীরে হরমোনাল ইমব্যালেন্স এর কারণেই অবাঞ্ছিত লোম সমস্যাটি দেখা যায়।

 

 

মুখের অবাঞ্ছিত লোম দূর করার বেশকিছু পদ্ধতি যেমন: শেভিং, ওয়াক্সিং, লেজার ট্রিটমেন্ট রয়েছে। তবে যারা কোনরকম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়া সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপায়ে লোমহীন উজ্জ্বল ত্বক পেতে চান তাদের জন্য এই ফেসপ্যাকটি।

 

মুখের অবাঞ্ছিত লোম দূর করার সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক     ফেসপ্যাক:

উপকরণ
২ টেবিল চামচ বেসন এর গুঁড়া
২ টেবিল চামচ নারিকেল তেল
২ টেবিল চামচ গোলাপ জল

 

উপকরণ :বেসন,নারিকেল তেল,গোলাপজল।

 

 

ব্যবহারবিধি:
উপকরণ গুলো একসাথে মিশিয়ে ভালোমতো ঘন একটি পেস্ট তৈরি করতে হবে। তারপর মুখে বা গলায় যেখানে যেখানে চুল আছে ভালো মতো লাগিয়ে ১০ থেকে ১৫ মিনিট শুকানোর জন্য অপেক্ষা করতে হবে।

 

 

 

 

ফেস মাস্ক টি পুরোপুরি শুকিয়ে যাওয়ার পর পানি ব্যবহার করা যাবে না। হাত দিয়ে ঘষে ঘষে যেদিকে চুলগুলো আছে তার উল্টো দিকে ত্বকে ম্যাসাজ করতে হবে। ম্যাসাজ করার পর পুরোপুরি ফেসপ্যাকটি মুখ থেকে পড়ে যাবে। তারপর আধাঘন্টা অপেক্ষা করতে হবে কোন প্রকার পানি দিয়ে মুখ ধোয়া যাবে না।
আধাঘন্টা পর নর্মাল পানি দিয়ে মুখ ধুতে হবে।

 

 

 

সতর্কতাঃ
এই মাস্কটি ব্যবহার করার পর কোন প্রকার ফেসওয়াশ ইউজ করা যাবে না। মুখ ভালোভাবে পানি দিয়ে ধোয়ার পরে মশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে।

 

খুব ভালো ফলাফল পেতে দুই দিন পর পর মাস্কটি ব্যবহার করুন। সপ্তাহে তিন থেকে চারদিন ব্যবহার করলে দুই মাস পরেই লক্ষ্য করবেন মুখের অবাঞ্ছিত লোম সম্পূর্ণভাবে চলে গিয়েছে। সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপাদান হওয়ায় এর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।