ঢাকাবুধবার, ২৭শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, রাত ৮:১৩
আজকের সর্বশেষ সবখবর

এনআইডি তে বয়স গোপন এবং সম্ভাব‍্য জটিলতা।

মোঃ ইমদাদুল হক। (ডেস্ক ঢাকা)
আগস্ট ৭, ২০২১ ৩:৩৫ অপরাহ্ণ
পঠিত: 64 বার
Link Copied!

 

এনআইডি তে বয়স গোপন এবং সম্ভাব‍্য জটিলতা।

-তোমার জন্ম তারিখ কত?
-কোনটা? আসল টা, না, কাগজ-পত্রের টা?
-কাগজ-পত্রের টা?
-SSC টা? না, জন্ম নিবন্ধনের টা? না পাসপোর্টের টা? না কি, এনআইডির টা?

বয়স গোপন করার প্রবণতা আমাদের প্রায় সবার মধ‍্যেই রয়েছে। অধিকাংশ বাঙ্গালীদের জন্ম তারিখ ০১ জানুয়ারি। আমারটাও অভিন্ন নয়। বাঙ্গালী দম্পতিরা ০১ জানুয়ারি বাচ্চা জন্মদানের জন‍্য কীভাবে পরিকল্পনা গ্রহণ করে থাকেন, তা বহির্বিশ্বে রীতিমতো একটি গবেষণার বিষয়। শুধু তাই নয়, বাঙ্গালিদের বয়স নিয়ে মৃত‍্যুদূত আজরাঈলও হয়তো মঝে-মধ‍্যে বেকায়দায় পড়ে গিয়ে থাকতে পারেন।

ইদানিং অফিসে অনেক ১৫/১৬ বছর বয়সী মাধ্যমিক বা উচ্চমাধ‍্যমিক পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রী ভোটার হওয়ার জন‍্য আসে। নিবন্ধন ফরমে যাদের বয়স ২১/২২ বছর এবং শিক্ষাগত যোগ‍্যতা- ৪র্থ শ্রেণি দেয়া থাকে। সাথে প্রমান হিসাবে জন্মনিবন্ধন সনদ দাখিল করে থাকেন।

কোনরকম শিক্ষাসনদ যেন দিতে না হয় তাই ফরমে শিক্ষাগত যোগ‍্যতা-৪র্থ শ্রেণি লিখা হয়। তাঁদের দৈহিক অবয়ব ও পোশাক পরিচ্ছদের সাথে ফরমে দেয়া বয়স ও শিক্ষাগত যোগ‍্যতার অসাঞ্জস‍্যতার বিষয়টি জিজ্ঞেস করলে প্রথম প্রথম অস্বীকার করার চেষ্টা করলেও প্রশ্নেরমুখে একপর্যায়ে স্বীকার করে সত‍্য বলে দেয়।

ছেলের ক্ষেত্রে কারণ হিসাবে বলা হয়, ‘বিদেশ যাবে। ভিসা পেতে বয়স ২১ হতে হয়। NID ছাড়া পাসপোর্ট বানানো যায় না।’ আর মেয়েদের বেলায় জবাব আসে এমন, – ‘বিয়ে হয়ে গিয়াছে কাবিননামায় ঐ বয়সই লেখা রয়েছে। বাচ্চাও আছে। চাকরি করবো না, তাই শিক্ষা সনদের প্রয়োজন নেই।’
অসত‍্য তথ‍্য দিয়ে ভোটার হওয়ার কুফল সম্পর্কে বর্ণনা করে অধিকাংশকে নিবৃত্ত করা গেলেও কতিপয় অভিভাবক আছেন যারা উল্টো রেজিস্ট্রেশন অফিসার কে যুক্তি তর্ক দিয়ে বাধ‍্য করার অপচেষ্টা করেন।

অপরিণামদর্শী চিন্তাভাবনার বশবর্তী হয়ে অসত‍্য জন্মতথ‍্য দিয়ে ভোটার হলে পরবর্তীকালে কী কী জটিলতা পাকাতে পারে, আসুন, জেনে নেয়া যাক।

 

সম্ভাব‍্য জটিলতাসমূহঃ
—————————-

ADVERTISEMENT

☆স্বাস্থ্য ঝুঁকিঃ

আমরা জানি যে, ঔষধ প্রয়োগের মাত্রা সর্বদা বয়সের সাথে সম্পর্কযুক্ত। বয়সের সাথে ঔষধের মাত্রা সঠিক না থাকলে একই ঔষধ জীবন রক্ষার বদলে জীবন নাশের কারণ হতে পারে।
ধরুন, আপনি সৌদি আরবে যাচ্ছেন আপনাকে অবশ‍্যই করোনার টীকা গ্রহণ করতে হবে। করোনার টীকা ১৮ বছরের নীচে ব‍্যবহার করলে স্বাস্থ্যঝুঁকির বিষয়টি এখনো গবেষণাধীন। আর আপনি সেই টীকা ১৬ বছরেই গ্রহণ করছেন। আবার মহিলাদের সন্তান সিজার করার জন‍্য এনেসথেসিয়া দিয়ে অজ্ঞান করা হয়। বয়সের তুলনায় এনেসথেসিয়ার মাত্রা বেশি হলে মৃত্যু ঝুঁকি বা দীর্ঘমেয়াদি স্বাস্থ্য জটিলতায় ভুগতে পারেন। বয়স গোপন করা মানে নিজের অশুভ পরিনাম নিজেই ডেকে আনা।

☆ধর্মীয় মূল‍্যবোধ পরিপন্থিঃ

পৃথিবীতে জন্মগ্রহণ বা ভূমিষ্ঠ হওয়া আমাদের জন‍্য সৃষ্টিকর্তার এক অপার কৃপা। সৃষ্টিকর্তা আমাকে যে উপযুক্ত সময় ও তারিখ পৃথিবীতে ভূমিষ্ঠ করিয়েছেন আমি তা অস্বীকার করে ফেলছি। তা কোনো ধর্মবিশ্বাসীর বৈশিষ্ট্য হতে পারে না।
আবার, আমি বয়সের হেরফের করে অন‍্যায‍্য সুবিধা নিচ্ছি মানে অন‍্যকে তাঁর ন‍্যায‍্য অধিকার হতে বঞ্চিত করছি। মানুষের অধিকার হরণ স্বয়ং সৃষ্টিকর্তাও ক্ষমা করেন না।

☆আইনগত জটিলতাঃ

সংবিধান অনুযায়ী ১৮ বছরের কম বয়সী কেউ ভোটার হতে পারেনা। ১৮ বছর না হওয়া সত্বেও আপনি মিথ‍্যা তথ‍্য দিয়ে ভোটার হয়ে NID গ্রহণ করেছেন। আপনি আইনের দৃষ্টিতে শাস্তিযোগ‍্য অপরাধ করেছেন।
আবার, ধরুন, আপনি একটি অপরাধ করেছেন যখন আপনার প্রকৃত বয়স ১৬ কিন্তু NID অনুযায়ী বয়স ১৯। তখন আপনার বিচারকার্য কিশোর আদালতে না হয়ে নিয়মিত আদালতে হবে। এ ক্ষেত্রে আপনি আইনী অধিকার বঞ্চিত হবেন।

☆নাগরিক ও সামাজিক অধিকার বঞ্চনাঃ

আপনার বর্তমানে প্রকৃত বয়স ২৭ বছর কিন্তু বিদেশ যাওয়ার জন‍্য ৪বছর বাড়িয়ে NID করেছিলেন সে অনুযায়ী এখন আপনার বয়স ৩১বছর। কোন কারণে আপনার বিদেশযাত্রা হয়নি। তখন দেশে সরকারি বা অন‍্য চাকরিতে বয়সের কারণে আপনি অযোগ্য হবেন। তদ্রুপভাবে অনেক মহিলারা বিবাহ-বিচ্ছেদের পর অনুরূপ সুবিধা হতে বঞ্চিত হয়ে থাকেন।

ADVERTISEMENT

-সন্তানের বয়স বাড়ানোর কারণে অনেক ক্ষেত্রে মায়ের সাথে বয়সের পার্থক্য ১৩/১৪ বছর হয়ে যায় অর্থাৎ ১৯বছরের কম হয়ে যায়, সেক্ষেত্রে সম্পত্তির উত্তরাধিকার জটিলতা তৈরি হতে পারে। এবং উন্নত রাষ্ট্রে অভিবাসন সুবিধা হতেও বঞ্চিত হবেন।

-বয়স হেরফের করার কারণে দুই আপন সহোদরের সাথে বয়সের পার্থক্য ৩/৪মাস হয়ে যেতে পারে। যা হাস‍্যকর বিষয় হয়ে দাড়ায়। এক্ষেত্রেও উত্তরাধিকারসহ অন‍্যান‍্য জটিলতায় পরতে পারেন।

-আপনার প্রকৃত বয়স ২৮ হওয়া সত্বেও NID তে বয়স বাড়ানোর কারণে বিয়ের বাজারে বয়স্ক পাত্রের অপবাদ আপনাকে মাথা পেতে নিতে হবে।

আবার যারা বয়স কমিয়ে ভোটার হয়েছেন তাঁরা বয়স্ক ভাতাসহ বিভিন্ন সিনিয়র সিটিজেনের সুবিধা হতে বঞ্চিত হচ্ছেন। করোনার টীকা গ্রহণের প্রথমদিকে বয়স চল্লিশোর্ধ নির্ধারণ করে দেয়ায় অনেকব‍্যক্তি NID তে বয়স কমানোর কারণে ঐ সময় টীকা হতে বঞ্চিত হয়েছিলেন।
আবার অনেকে বয়স কমাতে গিয়ে এতই কমিয়েছন যে বাবার মৃত্যুর ২বছর পরে নিজের জন্ম তারিখ দিয়ে SSC সনদ ও NID করে ফেঁসে গেছেন।

 

☆জাতীয় পরিকল্পনা ব‍্যাহত করেঃ

আপনি মিথ‍্যা জন্মতথ‍্য দিয়ে রাষ্ট্রকে বিভ্রান্ত করছেন। এসব ত্রুটিপূর্ণ বয়স-গঠন সম্বলিত জনমিতির উপর ভিত্তি করে গৃহীত বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনা ত্রুটিপূর্ণ থেকে যায়। ফলে, কাঙ্খিত ফলাফল পাওয়া যায়না।

মনে রাখবেন, জন্ম তারিখ একটি ধ্রুব ও অপরিবর্তনযোগ‍্য বিষয়। আপনি একবার যে জন্মতারিখ ঘোষণা দিয়ে ভোটার হবেন, পরবর্তীতে তা আর যৌক্তিক কোনো কারণ ছাড়া সহজে পরিবর্তনযোগ‍্য নয়। সাময়িক সুবিধা গ্রহণের জন‍্য প্রকৃত বয়স গোপন করে NID তৈরি করে আপনি দীর্ঘমেয়াদি জটিলতায় পতিত হবেন। যা আপনার জীবনে অপূরণীয় ক্ষতি বয়ে আনতে পারে।

 

 

 

 

ADVERTISEMENT
ADVERTISEMENT

x