ঢাকারবিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, সকাল ৮:২৭
আজকের সর্বশেষ সবখবর

তিউনিসিয়ার প্রধানমন্ত্রীকে বরখাস্ত করলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট।

তাসকিয়া তাবাস্সুম। (ডেস্ক ঢাকা)
জুলাই ২৭, ২০২১ ১১:৪৪ পূর্বাহ্ণ
পঠিত: 76 বার
Link Copied!

 

তিউনিসিয়ার প্রধানমন্ত্রীকে বরখাস্ত করলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট

 

 

গোটা তিউনিসিয়া জুড়ে চলছে বিক্ষোভ ও সহিংসতা। কোভিড -১৯ পরিস্থিতিতে সরকারের ব্যর্থতার প্রতিবাদে দেশটির জনগণ রাজপথে নেমে বিক্ষোভ করছেন।

সহিংসতা ছড়িয়ে পড়েছে গোটা দেশজুড়ে।তিউনিশিয়ায় সম্প্রতি করোনায় মৃত্যু ও সংক্রমণের হার বেড়েছে।

প্রায় এক কোটি ২০ লাখ জনসংখ্যার দেশটিতে করোনায় প্রায় ১৮ হাজার জনের মৃত্যু হয়েছে।করোনা পরিস্থিতিতে সরকারের ব্যর্থতায় বিক্ষোভে নেমেছে জনগণ।

 

 

বিক্ষোভের মুখে প্রধানমন্ত্রী হিচেম মেচিচিকে বরখাস্ত করেছেন প্রেসিডেন্ট কাইস সাইয়েদ। সেই সঙ্গে ৩০ দিনের জন্য পার্লামেন্ট স্থগিত করা হয়েছে।

কাইস সাইয়েদ ঘোষণা করেছেন যে তিনি নতুন প্রধানমন্ত্রীর সহায়তায় এবার নিজেই দায়িত্ব নেবেন। তিনি আরো জানান যে তিনি দেশে শান্তি ফিরিয়ে আনতে চান।

রবিবার কভিড-১৯ পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকারের ব্যর্থতার জেরে অসংখ্য মানুষ রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করে। এক পর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ বেধে যায়।

এক্ষেত্রে প্রেসিডেন্টের পদক্ষেপকে সামরিক অভ্যুত্থান হিসেবে আখ্যা দিয়েছে পার্লামেন্টের সবচেয়ে বড় দল ইসলামপন্থী এন্নাহদা পার্টি।

প্রেসিডেন্টের সংসদ স্থগিত ঘোষণার পর মধ্যরাতে পার্লামেন্টে ঢুকতে চেয়েছিলেন এন্নাহদার নেতা ও পার্লামেন্টের স্পিকার রাশিদ গানুশি।

কিন্তু সেনা সদস্যরা তাঁকে ঢুকতে দেননি। পরে এন্নাদাহ এবং তাঁর কর্মী-সমর্থকরা রাজপথে আন্দোলনে নামার আহবান জানিয়েছে। গতকাল সোমবার সংসদের সামনে জড়ো হয়ে প্রেসিডেন্টের সমর্থক ও বিরোধীরা একে অন্যের দিকে পাথর ছুড়ে মারে।

 

প্রধানমন্ত্রীকে বরখাস্ত করা হয়েছে এমন খবর পাওয়ার পর বিক্ষোভকারীরা উৎসব করতে থাকে।

অন্যদিকে রাজধানী তিউনিশ ও অন্য শহরগুলোয় হাজার হাজার মানুষ ক্ষমতাসীন দলের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করে এবং ‘বেরিয়ে যাও’ স্লোগান দিয়ে পার্লামেন্ট ভেঙে দেওয়ার আহবান জানায়।

দেশটির পার্লামেন্ট স্থগিত ও প্রধানমন্ত্রীকে বরখাস্তের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক মহল।

তুরস্ক, জার্মানি, রাশিয়াসহ বেশ কয়েকটি দেশ তিউনিশিয়ায় গণতান্ত্রিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনার আহবান জানিয়েছে।

 

১০ বছর আগে তিউনিশিয়ান বিপ্লবের মধ্য দিয়ে দেশটিতে গণতন্ত্রের সূচনা হয়েছিল। এখান থেকেই আরব বসন্তের বিদ্রোহ ছড়িয়ে পড়েছিল।

 

এক দশক পরে তিউনিশিয়া আবার একটি গভীর অর্থনৈতিক সংকটের মুখে পড়েছে এবং আফ্রিকার সবচেয়ে ভয়াবহ করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের সঙ্গে লড়াই করছে। এই অবস্থায় ফের রাজনৈতিক সংকটের মুখে পড়ল দেশটি।

 

নিউজরুম বিডি২৪